বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল সকালে নগররের কুমারপাড়ার ঘোষপাড়া মহল্লার নিজ বাড়িতে মায়া রানী ঘোষকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। মায়া রানী ওই বাড়িতে একাই থাকতেন। তিনি নগরের মন্নুজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। ২০১০ সালে তিনি চাকরি থেকে অবসর নেন।

পুলিশ জানায়, মায়া রানীকে হত্যা করে তাঁর গলার চেইন, হাতের বালা ও কানের দুল নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন মিলন। এ জন্য কয়েক দিন ধরে তিনি বাড়ি ভাড়া নেওয়ার নাম করে একাধিকবার মায়ার বাড়িতে যান। এর মধ্যে গতকাল বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে মিলন তাঁকে শ্বাস রোধে হত্যা করে তাঁর স্বর্ণালংকার ও মুঠোফোন ছিনিয়ে নিয়ে যান।

ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মন বলেন, ঘটনার পর থেকেই এই হত্যার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিকে পুলিশ খুঁজছিল। ঘটনার দিন রাতেই মিলনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় মিলনের বাড়ি থেকে সাড়ে তিন ভরি স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া তাঁর দেখানো একটি মার্কেটের ছাদ থেকে মায়া রানীর মুঠোফোন ও সিম কার্ড উদ্ধার করা হয়। এদিকে ঘটনার পর মায়া রানীর ভাই দেবাশীষ ঘোষের করা হত্যা মামলায় মিলনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। আজ তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন