বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে আরটি-পিসিআর, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন ও জিন-এক্সপার্ট মেশিনে মোট ৩ হাজার ৫৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৫৫১ জনের। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩৮। আগের ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার ২২৭ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৭২৩ জনের। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ১৭ দশমিক ১০। অর্থাৎ বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা কমেছে। এতে করে বিভাগে শনাক্তের সংখ্যা ও শনাক্ত হার আগের দিনের তুলনায় কমেছে।

২৪ ঘণ্টায় সংক্রমিত ৫৫১ জনের মধ্যে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ ১৪৩ জন, সিরাজগঞ্জে ১৩৬ জন, বগুড়ায় ৯৬ জন, পাবনায় ৭২ জন, নাটোর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩৭ জন করে, নওগাঁয় ২০ জন ও জয়পুরহাটে ১০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন ৫৫১ জন নিয়ে বিভাগে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৮ হাজার ৮৯১।

আড়াই মাসে সর্বনিম্ন মৃত্যু

রাজশাহী বিভাগে কয়েক দিন ধরে করোনায় মৃত্যু সংখ্যা কমছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের আট জেলার মধ্যে শুধু বগুড়ায় ৪ জন ও নাটোরে একজনসহ মোট ৫ জন মারা গেছেন। এটি বিভাগে গত আড়াই মাসের মধ্যে এক দিনে সর্বনিম্ন মৃত্যু। এর আগে গত ২৭ মে বিভাগে করোনায় ৫ জন মারা গিয়েছিলেন। বিভাগে এ নিয়ে মোট করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৪১৭ জনে।

বিভাগে আট জেলায় সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে বগুড়ায় সর্বোচ্চ ৫৯৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে রাজশাহী জেলায়। এ ছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৪৩ জন, নওগাঁয় ১২৪ জন, নাটোরে ১৩৩ জন, সিরাজগঞ্জে ৭৬ জন, জয়পুরহাটে ৫৩ জন ও পাবনায় ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে করোনায়।

গত বছরের ২৬ এপ্রিল রাজশাহী বিভাগে প্রথম করোনায় মৃত্যু হয়। এর মধ্যে গত বছর বিভাগে মোট ৩৬৬ জন মারা যান। আর চলতি বছরে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১ হাজার ৫১ জন। এর মধ্যে জুন মাসে ৩২৬ জন। মাসভিত্তিক হিসাবে জুলাই মাসে মারা গেছেন সর্বোচ্চ ৪৪৪ জন। আর আগস্ট মাসের ৯ দিনে মারা গেলেন ৯৭ জন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন