রাজশাহী সিটি করপোরেশন (রাসিক) সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী নগরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে অক্সিজেন স্বল্পতায় অথবা শ্বাসকষ্টে ভুগছেন, এমন ব্যক্তি ও তাঁর স্বজনেরা রাজশাহী সিটি করপোরেশনের হটলাইন নম্বরে কল করলে অথবা নিকটস্থ ওয়ার্ড কার্যালয়ে যোগাযোগ করলে তাৎক্ষণিক তাঁর বাড়িতে পৌঁছে যাবে অক্সিজেন, চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। রোগীকে পরীক্ষা করে প্রয়োজনমতো দেওয়া হবে অক্সিজেন ও চিকিৎসাসেবা। ২৪ ঘণ্টা চালু থাকবে এ সেবা। ১০০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে চালু বিনা মূল্যের এই মানবিক সেবা কার্যক্রমে শিগগিরই যুক্ত হবে আরও ১৫০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার। শুধু তা–ই নয়, আক্রান্ত ব্যক্তির খাবার ও ওষুধ প্রয়োজন হলে সেটিও সরবরাহ করবে সিটি করপোরেশন।

এখন থেকে সিটি করপোরেশনের হটলাইন নম্বরে (০১৭৫৮৯০১৯০৩) ফোন করলেই পৌঁছে যাবে অক্সিজেন সিলিন্ডার।

অনুষ্ঠানে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পর রাজশাহীর মহানগরীতে ব্যাপক ছড়িয়ে পড়েছে। এ পরিস্থিতি মোকাবিলায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি। জীবনসংকটে মানুষের পাশে দাঁড়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থসহায়তা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী মানুষের পাশে থাকতে নির্দেশনাও দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর সেই নির্দেশনা পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছি। ১০০ অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের বিনা মূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান আজ থেকে শুরু হলো। যাঁদের ওষুধ কেনার সামর্থ্য নেই, তাঁদের দামি ওষুধ ও খাবার বিনা মূল্যে সরবরাহ করা হবে। শিগগিরই বিনা মূল্যে অক্সিজেন সেবায় যুক্ত হবে আরও ১৫০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার।’

মেয়র আরও বলেন, ‘রাজশাহী মহানগরীতে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলমান লকডাউনের সময়সীমা আরও সাত দিন বাড়ানো হয়েছে। নগরীর ১২টি পয়েন্টে র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট অব্যাহত রয়েছে। শিগগিরই আরও অ্যান্টিজেন পরীক্ষাকেন্দ্র বাড়ানো হবে। ইতিমধ্যে করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালকে দুটি ভেন্টিলেটর ও হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা (এইচএফএনসি) সেট প্রদান করা হয়েছে। সবার সহযোগিতায় আমরা এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করব এবং আরও বেশি করে মানুষের পাশে থাকব।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম, প্যানেল মেয়র ও ১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল হামিদ সরকার, শিক্ষা ও স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. নূরুজ্জামান, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম শরীফ উদ্দিন, সচিব মো. মশিউর রহমান, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এফ এ এম আঞ্জুমান আরা বেগম প্রমুখ।