default-image

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরিপ্রত্যাশী ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতা-কর্মীরা দুটি প্রশাসন ভবনে তালা লাগিয়ে দিয়ে অবস্থান নিয়েছেন। আজ মঙ্গলবার সকালে ভবন দুটিতে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী ঢুকতে পারেননি।

এর আগে গতকাল সোমবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে ৩০ থেকে ৩৫ জন চাকরিপ্রত্যাশী উপাচার্য এম আব্দুস সোবহানের বাসভবনে তালা লাগিয়ে দেন। আজ সকালে তাঁরা সেই তালা খুলে দিয়ে দুটি প্রশাসন ভবনে তালা দেন।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, আজ দুপুর ১২টার দিকে প্রক্টর লুৎফর রহমান প্রশাসন ভবনে ঢোকেন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি ফারুক হোসেন ও মাহাফুজ আল-আমিন, সাবেক সহসভাপতি ইলিয়াছ হোসেনসহ ছয়জন ছাত্রলীগ নেতা প্রক্টরের সঙ্গে প্রশাসন ভবনে বৈঠকে বসেন। বেলা দুইটা পর্যন্ত তাঁদের বৈঠক চলছিল।

বিজ্ঞাপন

আজ প্রশাসন ভবনের সামনে কয়েকজন চাকরিপ্রত্যাশী বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় অন্যায্যভাবে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগপ্রক্রিয়া বন্ধ (স্থগিত) করে দিয়েছে। স্বায়ত্তশাসিত একটি বিশ্ববিদ্যালয়কে তারা এমন নির্দেশ দিতে পারে না। অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগপ্রক্রিয়া চালু করতে হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল দুপুরে অ্যাডহকের ভিত্তিতে রেজিস্ট্রার দপ্তরে একজন প্রতিবন্ধী প্রার্থীর চাকরি নিশ্চিত হয়। এরপর সন্ধ্যা থেকে অন্য চাকরিপ্রত্যাশীরা উপাচার্য ভবনের সামনে জড়ো হতে থাকেন। কিছুক্ষণ পর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার নেতৃত্বে কয়েকজনের একটি দল উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করেন। পরে রাত সাড়ে নয়টার দিকে তাঁরা উপাচার্য ভবনে তালা দেন।

এ বিষয়ে গতকাল উপাচার্য এম আব্দুস সোবহান সাংবাদিকদের বলেছিলেন, একজন প্রতিবন্ধী ছেলেকে চাকরি দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একটি চিঠি দেওয়া হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিশ্ববিদ্যালয়ে সব ধরনের নিয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ জারি রেখেছে। এ মুহূর্তে অন্য কোনো নিয়োগ দেওয়া তাঁর পক্ষে অসম্ভব।

মন্তব্য করুন