বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে সোহেলের বড় ভাই হাতিয়ার আল-আমিন গ্রামের রুহুল আমিন সরদারের ছেলে মো. সহিদ উল্যাহ অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার বিকেল চারটার দিকে তাঁর ভাই টাংকির বাজারে যান।

এরপর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে একই এলাকার ১০-১২ জনের একদল সন্ত্রাসী তাঁর ভাইকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। পরে তারা ঘটনাটি চেয়ারম্যানঘাট পুলিশ ফাঁড়িকে জানায়। এরপর পুলিশ একাধিক স্থানে অভিযান চালালেও তাঁর ভাইকে উদ্ধার করতে পারেনি।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক আমির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, তিনি হরণী ইউনিয়নে বয়ারচরে একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণের কাজ পান। স্থানীয় একটি পক্ষ ইতিপূর্বে একাধিকবার তাঁর কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

মঙ্গলবার থেকে পুনরায় কাজ শুরু করেন তিনি। শ্রমিক লীগের নেতা সোহেল স্থানীয়ভাবে তাঁর প্রকল্পের কাজটি দেখাশোনা করছেন। এ কারণেই সোহেলকে অপহরণ করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চেয়ারম্যানঘাট পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক আবদুল ওয়ারেছ প্রথম আলোকে বলেন, ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের নেতা সোহেলকে অপহরণের অভিযোগ মৌখিকভাবে শোনার পর তিনি নিজে পুলিশ নিয়ে একাধিক স্থানে অভিযান পরিচালনা করেছেন। কিন্তু কোথাও তাঁকে পাওয়া যায়নি। তবে ঘটনাস্থল রামগতি থানার ভেতরে হওয়ায় মামলা করলে সেখানে করতে হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন