রাস্তার ধারে পড়ে থাকা বৃদ্ধার পাশে ওসি

বিজ্ঞাপন
default-image

বয়স প্রায় ৭০ বছর। চলতে–ফিরতে পারেন না। বয়সের ভারে ক্লান্ত, অসুস্থ। তাঁর নাম জয়নব বিবি। বেশ কিছুদিন ধরে তাঁর ঠিকানা পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার সদর ইউনিয়নের উত্তর লক্ষ্মীপুর গ্রামে রাস্তার পাশে। সেখানেই বৃষ্টিতে ভিজে, রোদে পুড়ে, খেয়ে না–খেয়ে দিন কাটছিল তাঁর। এ বিষয়টি জেনে গতকাল বৃহস্পতিবার ছুটে আসেন দশমিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)। জয়নবকে গোসল করিয়ে কোলে তুলে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যান। অসুস্থ জয়নব বিবি এখন দশমিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জয়নব বিবির স্বামীর নাম আলাউদ্দিন আকন। বাড়ি পটুয়াখালী সদর উপজেলার লোহালিয়া ইউনিয়নের শৌলা গ্রামে। তাঁদের দুই সন্তান রুনা বেগম ও আরিফ। স্বামী মারা যাওয়ার পর জয়নব অন্যের বাড়িতে কাজ করে ছেলে ও মেয়েকে বড় করেছেন, বিয়ে দিয়েছেন। বিয়ের পরই ছেলে অন্যত্র সংসার পাতেন। এ অবস্থায় জয়নব আশ্রয় নেন তাঁর বাবার বাড়ি জেলার বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের বীরপাশা গ্রামে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দশমিনার লক্ষ্মীপুর গ্রামের বাসিন্দা শামীম মৃধা বলেন, প্রায় দুই মাস আগে থেকে উত্তর লক্ষ্মীপুরের টিটিসি ট্রেনিং সেন্টার এলাকার সড়কে এই বৃদ্ধাকে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এলাকার লোকজন প্রথমে স্থানীয় রাসেল নামের একজনের দোকানের বারান্দায় থাকার ব্যবস্থা করে দেন। কিন্তু জয়নব সেখানেই মল–মূত্র ত্যাগ করায় তাঁকে সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

পরে আবার রাস্তার পাশে ঠাঁই হয় এই বৃদ্ধার। সেখানেই বৃষ্টিতে ভিজে ও রোদে পুড়ে, খেয়ে না–খেয়ে দিন কাটছিল জয়নবের। এই খবর পেয়ে গতকাল সকালে দশমিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জসিম থানার কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান। পরে দুই সহকর্মী ও কয়েকজন নারীর সহযোগিতায় জয়নবকে ওসি নিজ হাতে গোসল করান। পরে পুলিশের ভ্যানে করে তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জয়নবের মেয়ে রুনা বেগমের বিয়ে হয়েছিল দশমিনা উপজেলার পশ্চিম আলীপুরা গ্রামে। রুমা তাঁর মায়ের খবর পেয়ে আজ শুক্রবার সকালে চলে আসেন দশমিনা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

রুনা বেগম মুঠোফোনে জানান, দীর্ঘদিন ধরে তাঁর মা অসুস্থ ও মানসিক ভারসাম্যহীন। মাঝেমধ্যে কাউকে না বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে চলে যেত। তারা ভাইবোন বাড়িতে না থাকায় তাঁদের মাকে নানাবাড়ি পাঠানো হয়েছিল। সেখান থেকে বের হয়ে কোথায় চলে গেছে, তাঁরা জানতে পারেননি। জয়নব বিবি সুস্থ হলেই তাঁর (রুনা) বাড়িতে নিয়ে যাবেন বলে জানান রুনা বেগম।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দশমিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বৃদ্ধার চিকিৎসার সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ওষুধও এখান থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে। বৃদ্ধা জয়নব এখন একটু সুস্থ বলে জানান তিনি।

দশমিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জসিম বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ সব সময় মানুষের কল্যাণে কাজ করে। ভালো কাজ করতে পারলে সব সময় ভালো লাগে। ওই বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে গোসল করিয়ে নতুন কাপড় দেওয়া হয়। তাঁর খাবারও কিনে দিয়েছি। নিয়মিত ওই বৃদ্ধার খোঁজখবর রাখা হচ্ছে। সুস্থ হলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন