আজ সকাল ১০টায় জেলা শহরের শহীদ রফিক সড়ক, শহীদ স্মরণি লেন সড়ক, গার্লস স্কুল সড়ক ও গঙ্গাধরপট্টি সড়কে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও ওষুধ ছাড়া সব দোকানপাট ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ দেখা গেছে।

default-image

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকা হচ্ছে জেলা শহরের প্রবেশদ্বার।এখানে আজ সকালে খুব কমসংখ্যক মানুষ দেখা গেছে। এর মধ্যে কেউ চিকিৎসাসেবা নিতে, কেউ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে আবার কেউ বা ওষুধ কিনতে আসেন।

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকার পৌর সুপারমার্কেটের সামনে শহীদ স্মরণি লেন সড়কের শুরুতে পুলিশের তল্লাশিচৌকি বসানো হয়েছে। আজ সকাল থেকে ওই স্থান দিয়ে যাতায়াতের সময় পুলিশ সদস্যদের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হলে তাঁদের বাড়িতে পাঠিয়ে দিচ্ছে পুলিশ। এ ছাড়া জেলা শহরের খালপাড় এলাকাতেও পুলিশের তল্লাশিচৌকিতে রাস্তায় বের হওয়া মানুষকে জেরার মুখে পড়তে দেখা গেছে।

ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে পোশাক কারখানার শ্রমিকবাহী বাস ছাড়া কোনো গণপরিবহন ও দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায়নি। তবে দু-একটি প্রাইভেট কার চলাচল করতে দেখা গেলেও পুলিশের তল্লাশিচৌকিতে চালক ও আরোহীদের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। জরুরি প্রয়োজনে যাতায়াত করায় তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অর্ধশতাধিক মৌসুমি শ্রমিকদের দেখা গেছে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে তাঁরা জটলা পাকিয়ে বসে গল্প করছেন। বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অধিকাংশ খাবারের দোকান বন্ধ দেখা গেছে। দু-একটি খোলা দেখা গেলেও সেখান থেকে খাবার কিনে ক্রেতারা চলে যান। কমসংখ্যক ফলমূলের দোকান খোলা দেখা গেছে।

খোলা স্থানে কাঁচাবাজার স্থানান্তরের নির্দেশনা থাকলেও মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড কাঁচাবাজার আগের জায়গাতেই আছে। তবে সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিক্রেতা ও ক্রেতাদের কেনাবেচা করতে দেখা গেছে।

পুলিশ সুপার রিফাত রহমান বলেন, লকডাউন বাস্তবায়ন করতে জেলায় আজ সকাল থেকে চার শতাধিক পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে ২০টির বেশি তল্লাশিচৌকি বসানো হয়েছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যাতে কেউ রাস্তায় বের হতে না পারে, সে জন্য পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন