বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলেও পাঙ্গাসী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কার্যালয় চত্বরে মো. রফিকুল ইসলামের মনোনয়ন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী আশরাফুল আলম, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল বারী, পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুস সালাম, আওয়ামী লীগ নেতা মতিয়ার রহমান, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রাশেদ রায়হান, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা সিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, পাঙ্গাসী ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের দেউলমুড়া গ্রামের মৃত আবদুল জব্বার খানের ছেলে মো. রফিকুল ইসলাম খান। তিনি স্থানীয়ভাবে নান্নু মাস্টার হিসেবে পরিচিত। তিনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। তবে রফিকুল ইসলাম ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য নন, বরং ১ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে কমিটিতে আছেন। তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে আওয়ামী লীগের নয়, বিএনপির অ্যাজেন্ডা বাস্তবায়ন করবেন। ৩০-৪০ বছরের পরীক্ষিত নেতা-কর্মীদের বাদ দিয়ে মো. রফিকুল ইসলামকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় তাঁরা চরমভাবে হতাশ ও ক্ষুব্ধ। তাঁরা এই আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বদল চান।

এ বিষয়ে আজ বিকেলে নৌকার প্রার্থী রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘দলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের অফিস থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছি। তৃণমূলের তালিকায় আমার নামসহ অন্যদের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। মনোনয়ন পাওয়ার পর কেন তাঁরা আমার বিরোধিতা করছেন, তা বুঝতে পারছি না।’ নৌকার প্রার্থী হিসেবে ইউপি নির্বাচনে জয়ের আশাবাদও ব্যক্ত করেন তিনি।
১১ নভেম্বর পাঙ্গাসী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হওয়ার কথা রয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন