বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সোনাখাড়া ইউনিয়নের ২ নম্বর সংরক্ষিত আসনে সদস্যপদে বর্তমান সদস্যসহ পাঁচজন প্রার্থী হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে চারজনের পছন্দের প্রতীক মাইক। পরে সমঝোতায় মাইক প্রতীক পান সমিরন খাতুন। তিনি বলেন, ‘গতবার অল্প ভোটে মাইক নিয়ে হেরেছিলাম। এবারও মাইক নিয়ে ভোটারদের কাছে যেতে চাই।’

এ ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডে তিন প্রার্থীর পছন্দের প্রতীক মোরগ। শেষে লটারি করে মোরগ প্রতীক পেয়েছেন বিমল চন্দ্র মাহাতো। তিনি বলেন, ভোটারদের কাছে মোরগের কদর একটু বেশি। তাই তিনি এ প্রতীকই চেয়েছিলেন। এখন ভোটের দিনের জন্য অপেক্ষা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডে সদস্যপদে ৩২ প্রার্থীর মধ্যে ১৮ জনই মোরগ চেয়েছিলেন। অন্যদিকে ৩টি সংরক্ষিত আসনে ১০ প্রার্থীর মধ্যে ৬ জনই মাইক চেয়েছিলেন।

সোনাখাড়া ইউনিয়নের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আমিরুল আলম বলেন, ‘প্রার্থীদের বেশির ভাগই মোরগ আর মাইকের ভক্ত। কেন সবাই এ দুটি প্রতীক চাচ্ছেন, সেটা জানি না।’

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, বেশির ভাগ প্রার্থীর পছন্দের প্রতীক মোরগ ও মাইক। যেসব ইউনিয়নে একই প্রতীকের একাধিক চাহিদা ছিল, সেখানে প্রথম সমঝোতার চেষ্টা করা হয়েছে। কোথাও কোথাও সমঝোতা হয়েছে, আবার কোথাও লটারির মাধ্যমে প্রতীক বরাদ্দ দিতে হয়েছে। তবে এ নিয়ে কোনো উত্তেজনা বা অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন