বিজ্ঞাপন

পাড়াতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান (ইউপি) রফিকুল ইসলাম গুলিবিদ্ধ হয়ে ওই কিশোরের মৃত্যুর ঘটনাটি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন। সংঘর্ষের এই ঘটনায় উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন ব্যক্তি আহত হয়েছেন।

গুরুতর আহত অবস্থায় ইয়াসিনকে রায়পুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানকার জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন বলছেন, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পাড়াতলী ইউপি সদস্য শাহ আলমের সঙ্গে সাবেক সদস্য ফজলুল হকের ছেলে শাহ আলমের বিরোধ চলছে। এর জের ধরে সোমবার সন্ধ্যায় দুই পক্ষের সমর্থকেরা টেঁটা, বল্লম ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এ সময় কয়েকজন গুলিবিদ্ধসহ উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন আহত হন। এর মধ্যে কিশোর ইয়াসিনও গুলিবিদ্ধ হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় ইয়াসিনকে রায়পুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানকার জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সংঘর্ষে অন্য আহত লোকজনকে রায়পুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নরসিংদী শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

রায়পুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘চরাঞ্চলের পাড়াতলী ইউনিয়নের কাচারিকান্দি গ্রামে সংঘর্ষের সময় এক কিশোর গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। এই ঘটনায় ঠিক কতজন আহত হয়েছেন তা এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন