বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রিপন মিয়ার বাড়ি গাবতলী উপজেলার পেরিরহাট এলাকায়। আহত রিকশাচালক রিপন বলেন, তিনি শহরের বড়গোলা থেকে রিকশায় যাত্রী তুলে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যাচ্ছিলেন। সাতমাথা অতিক্রম করার সময় ট্রাফিক পুলিশের সদস্য কোনো কারণ ছাড়াই হাতে থাকা লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করেন।

অভিযুক্ত ট্রাফিক পুলিশের সদস্য মাহবুব আলম বলেন, সাতমাথা অতিক্রম করার সময় তিনি ওই রিকশাচালককে থামানোর সিগন্যাল দেন। সিগন্যাল অমান্য করে রিকশা চালিয়ে যেতে থাকলে হাতে থাকা লাঠি দিয়ে রিকশায় আঘাত করেন। ভুলবশত তা চালকের গায়ে লেগেছে।


বগুড়ার ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই-১) রফিকুল ইসলাম বলেন, আহত রিকশাচালককে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত ট্রাফিক পুলিশের কনস্টেবল মাহবুব আলমকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বগুড়া পুলিশ লাইনসে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন