default-image

রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদের বিরুদ্ধে সিলেটে চেক প্রত্যাখ্যানের ঘটনায় হওয়া প্রতারণার তিনটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। আজ রোববার জেলার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের (প্রথম) আদালতের বিচারক হারুনুর রশিদ এ পরোয়ানা জারি করেন।

আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সিলেটের জৈন্তাপুরের ‘মাওলা স্টোন ক্রাশার মিলের’ স্বত্বাধিকারী সামসুল মাওলার কাছ থেকে পাথর কিনে এর বিপরীতে সাহেদ তিনটি চেক দেন। এসব চেকের বিপরীতে নির্দিষ্ট ব্যাংক হিসাবে পর্যাপ্ত টাকা ছিল না। এ কারণে চেকগুলো প্রত্যাখ্যাত হয়। এরপর যোগাযোগ করলে সাহেদ টাকা না দিয়ে সামসুলকে হুমকি-ধমকি দেন। এ ঘটনায় গত ৩ এপ্রিল সাহেদের বিরুদ্ধে সামসুল আদালতে প্রতারণার তিনটি মামলা করেন। এসব মামলার শুনানি শেষে আজ দুপুরে আদালতের বিচারক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

বিজ্ঞাপন
সাহেদের বিরুদ্ধে নতুন জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ঢাকার উত্তরা পশ্চিম থানায় পাঠানো হবে। এরপর এসব মামলায় সাহেদকে সিলেটের আদালতে হাজির করা হতে পারে।
মোহাম্মদ আবদুস ছাত্তার, এপিপি, সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালত

গত ২৮ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগরের ১ নম্বর স্পেশাল ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশ অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় সাহেদকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। এ মামলায় সাহেদ এখন কারাগারে রয়েছেন। তাঁর বিরুদ্ধে সারা দেশে ৫০টির বেশি মামলা রয়েছে।

জানতে চাইলে সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সহকারী সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) মোহাম্মদ আবদুস ছাত্তার বলেন, সাহেদ অন্য মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি। তাঁর বিরুদ্ধে নতুন জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ঢাকার উত্তরা পশ্চিম থানায় পাঠানো হবে। এরপর এসব মামলায় সাহেদকে সিলেটের আদালতে হাজির করা হতে পারে।

মন্তব্য পড়ুন 0