প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে রূপপুর প্রকল্পের আবাসিক এলাকা গ্রিন সিটির ৬ নম্বর বিল্ডিংয়ের ১০ তলার ১০৬ নম্বর কক্ষে ভালাদিমির শভেটসের সঙ্গে বেলারুশের তিনজনের ঝামেলা হয়। কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে হাতাহাতি শুরু হয়। এ সময় কাজাখস্তানের আরেক নাগরিক সেখানে উপস্থিত হন। শভেটস ও অ্যান্ডেকে কোপানো হয়। ঘটনাস্থলেই ভালাদিমির শভেটস মারা যান। খবর পেয়ে পুলিশ অ্যান্ডেকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠায়।

ঈশ্বরদী থানা-পুলিশ জানায়, নিহত ব্যক্তি রূপপুর প্রকল্পে নিকিম নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক পরিচালক (ফোরম্যান) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। নারীঘটিত কোনো বিষয় নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ঝামেলা হয়েছিল বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। একই সঙ্গে আহত ব্যক্তির চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সুরতহাল প্রতিবেদনে নিহত ব্যক্তির শরীরে ধারালো অস্ত্রের পাঁচটি আঘাত পাওয়া গেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আটক তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

ঈশ্বরদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হাদিউল ইসলাম বলেন, ‘আটক ব্যক্তিদের ভাষাগত সমস্যার কারণে বিষয়গুলো বুঝতে আমাদের সমস্যা হচ্ছে। দোভাষীর সহযোগিতা নিয়ে আমরা পুরো বিষয়টি বোঝার চেষ্টা করছি।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন