default-image

নীলফামারীর চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ি রেলপথের সংযোগপথে বাংলাদেশ রেলের একটি ইঞ্জিনের পরীক্ষামূলক চলাচল সফল হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে ইঞ্জিনটি চিলাহাটি সীমান্ত রেলস্টেশন ত্যাগ করে সীমান্তের শূন্যরেখায় পৌঁছায়। সেখানে প্রায় এক ঘণ্টা অবস্থানের পর ইঞ্জিনটি ফিরে আসে চিলাহাটি স্টেশনে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে চিলাহাটি রেলস্টেশনের অদূরে ফিতা কেটে পরীক্ষামূলক রেল ইঞ্জিন চলাচলের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী ৫৬ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মামুনুল হক, পশ্চিমাঞ্চল রেলের প্রধান প্রকৌশলী আল-ফাত্তাহ্ মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান, পাকশী বিভাগীয় রেলের ব্যবস্থাপক শহিদুল ইসলাম, চিলাহাটি রেলপথ নির্মাণের প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী আবদুর রহীম, নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন

এ সময় সীমান্ত এলাকায় উভয় দেশের কর্মকর্তারা মতবিনিময় করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘আশা করছি, আগামী বিজয় দিবসে পণ্যবাহী ও স্বাধীনতা দিবসে যাত্রীবাহী ট্রেন চলবে। হয়তো বিজয় দিবসে যাত্রীবাহী ট্রেনও চলতে পারে। এ বিষয়ে দুই দেশের কূটনৈতিক বিষয়গুলো যখন আলোচনা হবে, তখন নির্দেশনা আসবে।’

চিলাহাটি রেলপথ নির্মাণের প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী আবদুর রহিম বলেন, ‘দুই দেশের রেললাইন নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। ভারত চলতি মাসের ৮ অক্টোবর তাদের অংশে পরীক্ষামূলক রেল ইঞ্জিন চালিয়েছে। আজ আমরা রেল ইঞ্জিন সফলভাবে চালিয়েছি।’

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, ব্রিটিশ আমলে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথে ট্রেন চলাচল করত। ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে যুদ্ধের পর রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। পরিত্যক্ত রেলপথটি চালু করতে ৮০ কোটি ১৬ লাখ ৯৪ হাজার টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প হাতে নেয় বর্তমান সরকার।

মন্তব্য পড়ুন 0