বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনের পর প্রতিবাদ সমাবেশে পালংখালী ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল কাদের ভুট্টু বলেন, ১১ লাখ রোহিঙ্গা এখন জেলার ২৫ লাখ মানুষের জন্য বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। জেলার শ্রমবাজার এখন রোহিঙ্গার দখলে। চুরি–ছিনতাই, অসামাজিক কার্যকলাপ দিন দিন বেড়েই চলেছে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু করতে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন শুরু করতে হবে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী বলেন, রোহিঙ্গারা এখন ইয়াবা, আইস, সোনা ও অস্ত্র চোরাচালানে জড়িয়ে পড়েছে। তারা বনাঞ্চল উজাড় করে পরিবেশ ও জীবজন্তুর আবাসস্থল নষ্ট করেছে। ক্যাম্পগুলোতে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরসা ও আল ইয়াকিন নামে সংগঠন পরিচালনা করছে বলে তিনি দাবি করেন। রোহিঙ্গাদের কারণেই জেলায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি ঘটছে। তাই রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের দাবি জানান তিনি।

উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাসান জামাল বলেন, চার বছর ধরে সরকার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নিচ্ছে। কিন্তু কতিপয় দেশি-বিদেশি এনজিওর ষড়যন্ত্রের কারণে সেটা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সম্প্রতি আশ্রয়শিবিরগুলোতে বিভিন্ন অপরাধ সংঘঠিত হয়ে আসছে। রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের অপতৎপরতা বন্ধ এবং সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা না হলে পরিস্থিতি আরও জটিল আকার ধারণ করবে।

সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন ও রাজনৈতিক দলের নেতারা বক্তব্য দেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন