বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় কয়েকজন জনপ্রতিনিধি বলেন, আজ সন্ধ্যার দিকে রোয়াংছড়ি উপজেলা সদর থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে তারাছা ইউনিয়নের তালুকদারপাড়ায় সশস্ত্র চার-পাঁচজন আসেন। এ সময় তাঁরা ওই পাড়ার উথোয়াইনু মারমার বাড়িতে ঢুকে তাঁকে লক্ষ্য করে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে গুলি ছোঁড়েন। এ সময় উথোয়াইনু মারমা ভাত খাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে ওই পাড়ার বিধবা নারী ক্রাথুইচিং মারমার (৩৫) ঊরুতে গুলি লাগে। তালুকদারপাড়াটি রোয়াংছড়ি উপজেলায় হলেও জেলা শহরতলির কাছাকাছি। ওই পাড়ার কাছে একটি পুলিশ ক্যাম্পও রয়েছে।

তালুকদারপাড়ার বাসিন্দা ও তারাছা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য চাউহ্লাউ মারমা বলেন, ঊরুতে গুলিবিদ্ধ ক্রাথুইচিং মারমা তাঁর ছোট বোন। এর আগে তাঁর ছোট ভাই মংমং থোয়াই মারমাকেও সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করেছে। তাঁরা তাঁর গুলিবিদ্ধ বোনকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ভর্তির জন্য পাঠিয়ে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে তারাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উথোয়াইচিং মারমা বলেন, অস্ত্রধারীরা উথোয়াইনু মারমাকে গুলি করে দ্রুত পালিয়ে গেছে। হামলাকারীদের পরিচয় জানা যায়নি।

রোয়াংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম তালুকদারপাড়ায় উথোয়াইনুকে গুলি করে হত্যার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, উথোয়াইনুর লাশ উদ্ধার ও সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের জন্য তালুকদারপাড়ায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে। সেখানে গেলে কী ঘটেছে, সে বিষয়ে বিস্তারিত জানা সম্ভব হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন