বাইপাইল এলাকায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা জানান, সকালে র‍্যাবের লোগো সংবলিত টি–শার্ট পরা এক ব্যক্তি বাইপাইল বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীর জন্য অপেক্ষারত বেশ কয়েকটি বাসে ওঠেন আবার নেমে যান। এ ছাড়া তিনি বাস, ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহনকে চলাচলের দিকনির্দেশনা দিচ্ছিলেন, পাশাপাশি টাকাও নিচ্ছিলেন। বিষয়টি ওই এলাকায় দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের সন্দেহ হলে ওই ব্যক্তিকে আটক করে আশুলিয়া থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এক বাসচালক নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, বাসস্ট্যান্ডে যাত্রীর জন্য অপেক্ষারত বাসগুলো থেকে ওই ব্যক্তি ৫০ টাকা, ১০০ টাকা করে নিচ্ছিলেন। র‍্যাবের সদস্য ভেবে টাকা দিচ্ছিলেন চালকেরা।

বাইপাইল ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) খসরু পারভেজ প্রথম আলোকে বলেন, র‍্যাবের লোগো লাগানো টি–শার্ট পরিহিত এক ব্যক্তি বাইপাইল স্ট্যান্ডে অপেক্ষারত বাসগুলোকে চলাচলের বিভিন্ন নির্দেশনা দিচ্ছিলেন ও টাকা নিচ্ছিলেন। বিষয়টি খেয়াল করে তাঁকে আটক করে আশুলিয়া থানা–পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

থানা হেফাজতে থাকা রবিউল দাবি করেন, তিনি একসময় সেনাবাহিনীতে সৈনিক পদে চাকরি করতেন। পরে চাকরিচ্যুত হন। তিনি ডায়াবেটিসের রোগী। চলাফেরার কোনো উপায় না পেয়ে এ কাজ করছিলেন।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক দেলোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, র‍্যাব পরিচয়ে রবিউল ইসলাম বিভিন্ন গাড়ি থেকে ২০–১০০ টাকা পর্যন্ত চাঁদা নিচ্ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে সৈনিক পদে ছিলেন এবং সেখান থেকে তাঁকে চাকুরিচ্যুত করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন। তবে তথ্যটি যাচাই করা সম্ভব হয়নি। এ ব্যাপারে ট্রাফিক পুলিশ বাদি হয়ে চাঁদাবাজির মামলা করবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন