বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিটি করপোরেশন দুই সদস্যের এই কমিটি গঠন করে। কমিটির সদস্যরা হলেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক এবং ইনস্টিটিউট অব আর্থকোয়েক ইঞ্জিনিয়ারিং রিসার্চের পরিচালক অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুর রহমান ভূঁইয়া এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. হাফিজুর রহমান। উড়ালসড়কের ওই র‌্যাম্পটি পরিদর্শনের সময় তাঁদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামও।

রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, কমিটির সদস্যরা তাঁদের বলেছেন র‍্যাম্পের পিলারের বড় কোনো সমস্যা নেই। টুকটাক কিছু থাকলেও তা ঠিক করা যাবে। প্রতিবেদনের পর তা বিস্তারিত জানা যাবে এবং যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

তদন্ত দলের অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুর রহমান ভূঁইয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা পরিদর্শন করেছি। দ্রুত সময়ে আমরা সিটি করপোরেশনকে প্রতিবেদন দেব। আপনারা সেখান থেকে জানতে পারবেন। তবে আপাতদৃষ্টিতে যা মনে হলো, ভয়ের কিছু নেই।’

default-image

গত ২৬ অক্টোবর সন্ধ্যায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বহদ্দারহাটের উড়ালসড়কের র‍্যাম্পের একটি পিলারে ‘ফাটলের’ খবর ও ছবি ছড়িয়ে পড়ার পর ওই অংশে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যদিও ২৭ অক্টোবর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে র‍্যাম্পের নকশা প্রণয়নকারী প্রতিষ্ঠান ডিজাইন প্ল্যানিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট (ডিপিএম) কনসালট্যান্টস লিমিটেডের বিশেষজ্ঞ দল সাংবাদিকদের জানায়, পিলারে কোনো ফাটল নেই। যানবাহন চলাচল করতে পারবে। তবে আপাতত ভারী যানবাহন চলাচল করতে দেওয়া যাবে না। এরপর চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নিরপেক্ষ তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়। বর্তমানে মূল উড়ালসড়ক এবং নিচের সড়কে গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।
নির্মাণকাজ শেষে চার বছর আগে এই র‍্যাম্প যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছিল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন