বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শনিবার রাতে কেরোয়া ইউনিয়নের মানছুর পাটোয়ারী বাড়ির সামনে সাত-আটটি মোটরসাইকেলে করে নৌকার সমর্থকেরা মহড়া দেন। একপর্যায়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী বাবুল পাটোয়ারীকে গালমন্দ করে খুঁজতে থাকেন তাঁরা। বাবুল পাটোয়ারী বাড়ি থেকে বের হয়ে এলে তাঁর ওপর হামলা করেন নৌকার সমর্থকেরা। এ সময় তাঁর নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর ও বাড়িতেও হামলা করা হয়। একপর্যায়ে এলাকার লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে তাঁদের ধাওয়া দিয়ে তাড়িয়ে দেন।

এ বিষয়ে বিল্লাল হোসেন পাটোয়ারী বলেন, ‘ন্যক্কারজনকভাবে নৌকার সমর্থকেরা মোটরসাইকেল মহড়া দিয়ে আমার ওপর হামলা করে। এ সময় আমার চার-পাঁচজন কর্মী আহত হয়েছেন।’

অভিযোগের বিষয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী শাহিনুর বেগম বলেন, ‘হামলার অভিযোগ সঠিক নয়। আমার লোকজন ওই এলাকায় নির্বাচনী প্রচার করতে গেলে বাবুল পাটোয়ারীর লোকজন তাঁদের ওপর হামলা করে। আমার কয়েক কর্মীকেও পিটিয়ে আহত করা হয়েছে।’

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল জলিল প্রথম আলোকে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত। এ ঘটনায় থানায় কেউ অভিযোগ দেননি।

এ ঘটনায় রোববার বিকেলে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দিয়েছেন রিটানিং কর্মকর্তার কাছে। রিটানিং কর্মকর্তা এ কে এম মোস্তাক আহমেদ বলেন, হামলার ঘটনায় দুজন চেয়ারম্যান প্রার্থী লিখিত অভিযোগ করেছেন। তাঁদের আজ কারণ দর্শনোর নোটিশ দেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন