বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খুনের ঘটনায় আজ শুক্রবার সকালে চন্দ্রগঞ্জ থানায় নিহত দুলালের ছেলে রাসেদ হোসেন বাদী হয়ে মামলা করেন। এতে মেহেদী হাসানকে প্রধান করে তিনজনকে আসামি করা হয়।

পুলিশ ও কয়েক প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গতকাল দুপুরে স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. মাসুদের সুপারিবাগান থেকে সুপারি চুরি করেন মো. নাজিম ও আসিফ হোসেন নামের দুজন। এ সময় চুরির দৃশ্যটি মুঠোফোনে ভিডিও ধারণ করে অটোরিকশাচালক দুলালের ছোট ছেলে মুরাদ। পরে চুরির ভিডিও সুপারিবাগানের মালিককে দেখিয়ে দেবে বলে জানানে নাজিম ও আসিফ তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। তাই মুরাদকে তুলে নিয়ে হত্যা করতে নাজিম তাঁর বন্ধু মেহেদী হাসানকে ভাড়া করেন। এ নিয়ে মেহেদী হাসান দিনভর দুলাল ও তাঁর ছেলে মুরাদকে হুমকি দেন।

এ নিয়ে রাত ১১টার দিকে বাড়ির পাশে দোকানের সামনে অটোরিকশাচালক দুলাল ও মেহেদী হাসানের বাবা হাফিজের বাগ্‌বিতণ্ডা শুরু হয়। এ সময় বাইরে থেকে এসে কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই প্রকাশ্যে ছুরি দিয়ে পেটে আঘাত করেন মেহেদী। এতে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন বৃদ্ধ দুলাল।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে ফজলুল হক বলেন, খুনের ঘটনায় জড়িত থাকায় মেহেদী হাসানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে খুনের কথা স্বীকার করেছেন মেহেদী।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন