বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত শরীফ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চর রমণী মোহন ইউনিয়নের পশ্চিম চর রমণী মোহন গ্রামের আবদুল ব্যাপারীর ছেলে। তিনি মেঘনা নদীতে মাছ শিকার করতেন।

পুলিশ বলছে, ঘটনাটি রহস্যজনক। এ জন্য মরদেহ সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

তবে শরীফের বাবা আবদুল ব্যাপারীর অভিযোগ, স্থানীয় নাছির মোল্লা, জাহাঙ্গীর মোল্লা, আলমগীর মোল্লা, কাশেম ছৈয়াল ও হজরত আলী তাঁর ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে পিটিয়েছেন। শরীফের কাছে ৫০ হাজার টাকা ছিল। ওই পাঁচজন টাকা আত্মসাতের জন্য গতকাল সন্ধ্যায় মজুচৌধুরীর হাট থেকে তাঁর ছেলেকে স্থানীয় সবুজের চায়ের দোকানের সামনে তাস খেলার জন্য ডেকে নিয়ে যান। সেখানে কথা-কাটাকাটির জেরে তাঁরা শরীফকে মারধর করেন। এ সময় অচেতন হয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসেন। অবস্থার অবনতি হলে সকালে তাঁকে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দীন বলেন, নিহত শরীফের বাবার অভিযোগ, তাঁর ছেলেকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাস্থলের ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, শরীফ হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মারা যান। সব মিলিয়ে এখনো ঘটনাটি পরিষ্কার নয়। তদন্তের জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন