বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, দেশে তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ২৮ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ২ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের শেষ দিন ছিল ৪ নভেম্বর।

প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১১ নভেম্বর। দিন শেষে জানা যায়, তিন চেয়ারম্যান পদসহ ১৭টি পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নেই। ফলে তাঁরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে আছেন। এর মধ্যে রায়পুর উপজেলায় সাতজন সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য, তিনজন সংরক্ষিত নারী সদস্য আছেন। এ ছাড়া রামগঞ্জ উপজেলার সাধারণ সদস্য তিনজন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য আছেন একজন।

রায়পুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হারুন মোল্লা বলেন, রায়পুর উপজেলার রায়পুর, চর মোহনা ও উত্তর চর বংশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হচ্ছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় নিয়ম অনুযায়ী তাঁরা নির্বাচিত হবেন।

চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হওয়ার প্রক্রিয়ায় যে তিনজন আছেন, তাঁরা হলেন রায়পুরে মো. সফিউল আজম চৌধুরী, উত্তর চর বংশী ইউনিয়নে আবুল হোসেন ও চর মোহনা ইউনিয়নে মো. শফিক। তাঁরা তিনজনই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) লক্ষ্মীপুর শাখার সভাপতি কামাল হোসেন বলেন, দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। বিতর্কিত নির্বাচনের কারণে নির্বাচন পরিচালনা প্রতিষ্ঠান ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতি মানুষ অনাস্থা প্রকাশ করেছে। এখন নির্বাচন হচ্ছে সরকার দল সমর্থিত নিজেরা নিজেরা। তারপরও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ভয় তাঁদের। এতে গণতন্ত্র বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন