ঘাটগুলো হলো ললিত মোহন সাধু ঘাট, নাসিম ওসমান ঘাট, অন্নপূর্ণা ঘাট, রাজঘাট, পঞ্চপাণ্ডব ঘাট, মাকরী সাধু ঘাট, গান্ধী (মহাশ্মশান) ঘাট, ভদ্রেশ্বরী কালী ঘাট, জয়কালী মন্দির ঘাট, রক্ষাকালী মন্দির ঘাট, পাষাণকালী মন্দির ঘাট, স্বামী দীঘিজয় ব্রহ্মচারী আশ্রম প্রেমতলা ঘাট, তাজপুর-জহরপুর মুনি ঋষিপাড়া ঘাট, শ্রীরামপুর জগদ্বন্ধু (ব্রহ্মা মন্দির) ঘাট, দক্ষিণেশ্বরী কালীমন্দির ঘাট, পরেশ মহাত্মা আশ্রম ঘাট, সাব্দী রক্ষাকালী মন্দির ঘাট ও সাব্দী লোকনাথ ব্রহ্মচারী আশ্রম ঘাট।

এদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও নদীপথে নৌযানে পুণ্যার্থীরা আসছেন লাঙ্গলবন্দে। পুণ্যার্থীদের ঢলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে লাঙ্গলবন্দ সেতুর দুই প্রান্তে প্রায় ২৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। স্নানোৎসব উপলক্ষে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ থেকে পরিবারের সবাইকে নিয়ে স্নানোৎসবে এসেছেন মুক্তা দাস। তিনি বলেন, পুণ্য লাভের আশায় স্নানে অংশ নিতে এসেছেন তিনি।

কুমিল্লা থেকে আসা জয় রায় বলেন, তিনি তাঁর মা ও বোনকে নিয়ে স্নানে অংশ নিতে এসেছেন। সার্বিক আয়োজন ভালো হলেও কাপড় বদলানোর জায়গা অপ্রতুল। কনিকা রানী নামের একজন পুণ্যার্থী বলেন, এবার স্নানে প্রচুর মানুষ এসেছেন। তাঁর ধারণা, গত দুই বছর বন্ধ থাকায় এবার পুণ্যার্থী বেশি হয়েছে।

৬ নম্বর ভদ্রেশ্বরী কালীমন্দির ঘাটে পুরোহিত মঙ্গল চক্রবর্তী পুণ্যার্থীদের মন্ত্র পাঠ করাচ্ছেন। তাঁর বাড়ি গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলায়। তিনি বলেন, গত ১৬ বছর ধরে লাঙ্গলবন্দে পূজার মন্ত্র পাঠ করান তিনি। অন্যবারের চেয়ে এবার পুণ্যার্থীর সংখ্যা বেশি।

নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে স্নান অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এখন পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। শেষ পর্যন্ত সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে স্নান সম্পন্ন হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, শনিবার দুপুর পর্যন্ত ৫ থেকে ৬ লাখ পুণ্যার্থীরা স্নানে অংশ নিয়েছেন। যেহেতু আরও সময় আছে স্নানে আরও পুণ্যার্থী অংশ নেবেন। পুণ্যার্থীদের আগমনের কারণে মহাসড়কে গাড়ির চাপ রয়েছে। স্নানের যাত্রীদের আনা গাড়িগুলোকে পার্কিংয়ে পাঠিয়ে দিচ্ছে পুলিশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন