লালমনিরহাটে জেএমবির এক সদস্যকে ১৪ বছর কারাদণ্ড

কারাদণ্ড
প্রতীকী ছবি

জঙ্গি কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার দায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) এক সদস্যকে ১৪ বছর সশ্রম কারাদণ্ড, এক হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ বুধবার সকালে লালমনিরহাট সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মিজানুর রহমান এই রায় দেন। একই মামলায় অপর এক ব্যক্তিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

দণ্ডপ্রাপ্ত জেএমবি সদস্য হলেন মো. তালিম প্রধান। তাঁর বাড়ি লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার রসুলগঞ্জে। খালাস পাওয়া ব্যক্তি হলেন মো. আবদুস সবুর। রায় ঘোষণার সময় দুজনেই আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

আদালত ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে পাটগ্রাম বাজারে তালিম কম্পিউটার পয়েন্ট নামে একটি দোকানে জেএমবির কয়েক সদস্য বৈঠক করছিলেন। খবর পেয়ে রংপুরের র‌্যাব-১৩–এর এসআই শরিফুল ইসলাম কোম্পানি কমান্ডার রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে সেখানে অভিযান চালান। তাঁদের উপস্থিতি টের পেয়ে দোকান থেকে চার থেকে পাঁচজন দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। এ সময় তালিম প্রধানকে আটক করা হয়। দোকানে তল্লাশি চালিয়ে জঙ্গিসংক্রান্ত ১৮টি বই-পুস্তক, ১১০টি লিফলেট, কম্পিউটার যন্ত্রাংশ সিপিইউ ও দুটি সচল মুঠোফোন জব্দ করা হয়।

এ ঘটনায় এসআই শরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে ১৬ সেপ্টেম্বর রাত সোয়া ৮টায় পাটগ্রাম থানায় সংশ্লিষ্ট আইনের বিভিন্ন ধারায় মামলা করেন। সেই মামলায় তালিমকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ২০১৯ সালের ৩০ জুন লালমনিরহাটের সংশ্লিষ্ট আদালতে আসামি তালিম প্রধান ও আবদুস সবুরের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত মামলার রাষ্ট্রপক্ষের ১৮ জন সাক্ষীকে আদালতে হাজির করেন। আসামিপক্ষ থেকে তাঁদের জেরা করা হয়েছে। আদালত তালিম প্রধান ও আবদুস সবুরের উপস্থিতিতে ২০২০ সালের ২২ সেপ্টেম্বর অভিযোগ গঠন করেন।