বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হাসকিং মিলের মালিক আফতাব আলী বলেন, ভোরে মিলের পাহারাদার কানু মোহন্তের মাধ্যমে জানতে পারেন, পরিত্যক্ত একটি ঘরের বারান্দায় একজনের লাশ ঝুলে আছে। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে ফুলবাড়ী থানায় জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে চাকু ও জমির কাগজ জব্দ করে। আফতাব আলী বলেন, শহিদুল ইসলাম বেশ শান্ত প্রকৃতির মানুষ ছিলেন।

নিহতের স্ত্রী কাওছারা বেগম বলেন, বসতভিটার জমির মালিকানা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় একজনের সঙ্গে বিরোধের জেরে মামলা চলছিল। গতকাল রোববার আদালতে ওই মামলার শুনানির তারিখ ছিল। সকাল নয়টার দিকে দিনাজপুরে আদালতে যাওয়ার জন্য মামলার নথি নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন শহিদুল।

রাত হলেও বাড়ি না ফেরায় শহিদুলের খোঁজে আইনজীবীকে ফোন করেন কাওছারা। তখন জানতে পারেন শহিদুল বিকেলের আগেই আদালত থেকে বাড়ি ফিরেছেন। কাওছারা বেগম বলেন, এরপর বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেন স্বজনেরা। আজ সকালে স্থানীয় ব্যক্তিদের মাধ্যমে জানতে পারেন, আফতাবের মিলে শহিদুলের লাশ পাওয়া গেছে।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশ্রাফুল ইসলাম বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে আসামি অজ্ঞাত উল্লেখ করে হত্যা মামলা করেছেন।

আশ্রাফুল ইসলাম আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি চাকু ও জমির কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সিআইডিসহ পুলিশের বেশ কয়েকটি ইউনিট কাজ করছে। তদন্ত শেষে প্রকৃত বিষয় জানা যাবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন