বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বক্তারা বলেন, কিছুদিন ধরে শহর এলাকায় লোডশেডিং হচ্ছে। দিনে চার-পাঁচ ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকে না। শহরতলিরও একই অবস্থা। সমস্যা জানতে পিডিবির কার্যালয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করলে কেউ ফোন ধরেননি। অন্যদিকে, গ্রাহকদের ভৌতিক বিল দেওয়া হয়। মিটারের রিডিংয়ের সঙ্গে বিলে দেওয়া রিডিংয়ের মিল থাকে না। স্কুল-কলেজ খুলেছে। শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় ব্যাঘাত ঘটছে।

বদরুজ্জামান বলেন, কিছুদিন আগে তাঁরা পিডিবির কার্যালয়ে যান। এ সময় সেখানে দায়িত্বে থাকা নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে আলোচনা করে বিদ্যুতের সমস্যার প্রতিকার চান। নির্বাহী প্রকৌশলী আশ্বাস দিলেও অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। এ কারণে মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সমস্যার সমাধান না হলে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে স্মারকলিপি প্রদান এবং দাবি আদায়ে জনমত সৃষ্টি করতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে মতবিনিময় করা হবে। প্রয়োজনে পিডিবির কার্যালয় ঘেরাওয়ের কর্মসূচি ঘোষণা করা হতে পারে।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এম আতিকুর রহমান, সিপিবির মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি খন্দকার লুৎফুর রহমান, উপজেলা বিএনপির সভাপতি পৌর কাউন্সিলর জয়নাল আবেদিন, ব্যবসায়ী সমিতির সহসভাপতি রফিক মিয়া প্রমুখ।

পিডিবির কুলাউড়া বিক্রয়, বিতরণ ও সরবরাহ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. উসমান গণি বলেন, তাঁদের কুলাউড়া উপকেন্দ্রটি পুরোনো হয়ে গেছে। সেটির সংস্কারকাজ চলছে। কাজ সম্পন্ন হলে বিদ্যুৎ–বিভ্রাটের সমস্যা থাকবে না। আর লোকবলের অভাবে বিদ্যুৎ বিলের সমস্যা হচ্ছে। গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন