বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওই দোকানের মালিক সোহাগ কাজী বলেন, ঘটনার সময় তিনি দোকানে ছিলেন না। শিশুটির গলায় খাবার আটকে গেলে স্থানীয় লোকজন ও কর্মচারীরা তাকে হাসপাতালে নেন।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক বিপাশা মোশারফ বলেন, শ্বাসনালিতে খাবার আটকে শিশুটি মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। হাসপাতালে আনার পর দেখা যায়, তার মুখ নীল হয়ে গেছে। সে নিস্তেজ হয়ে গিয়েছিল। মৃতপ্রায় অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে আনা হয়।

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু হেনা বলেন, পরিবার থেকে কোনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন