বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ শরণখোলা শাখার সভাপতি বাবুল দাস বলেন, ‘এখানে সব ধর্মের মানুষেরা সম্প্রীতির সঙ্গে বসবাস করেন। নির্বিঘ্নে আমরা আমাদের ধর্মীয় উৎসব পালন করছি। কিন্তু এখানে সম্প্রীতি নষ্ট করার অপচেষ্টা করছে একটি মহল। এতে হিন্দুদের মধ্যে অতঙ্ক দেখা দিয়েছে। কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যাতে দেশের অন্য কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সে ব্যাপারে প্রশাসনসহ সবাইকে সতর্ক থাকার আহবান জানাই।’


শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান বলেন, ‘এলাকায় উত্তেজনা ছড়ানো ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টার অভিযোগে কিছু লোক মিছিল বের করেন। এর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আমরা চারজনকে গ্রেপ্তার করে ৫৪ ধারায় আদালতে প্রেরণ করেছি। তাঁদের সংশ্লিষ্টতা এবং কেন কারা কী উদ্দেশ্যে মিছিল করেছিল, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ছাড়া যেহেতু হিন্দু সম্প্রদায়ের বড় ধর্মীয় উৎসব চলছে, সবদিক বিবেচনায় নিরাপত্তা ও টহল জোরদার করা হয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন