বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ওই নবজাতক উপজেলার বড়মগড়া গ্রামের দিনমজুর রমেন জয়ধর ও অপু জয়ধর (২০) দম্পতির প্রথম সন্তান।

আগৈলঝাড়ার ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকের ব্যবস্থাপক মিলন মিয়া বলেন, ‘নবজাতক শরীরের বাইরে হৃৎপিণ্ড নিয়ে জন্মেছিল। টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে না পারায় ঢাকা থেকে আগৈলঝাড়ায় এনে আমাদের ক্লিনিকে গতকাল বিকেলে তাকে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর তার অবস্থার অবনতি ঘটছিল।’

রমেন জয়ধরের ভাষ্য, ‘বারডেম হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানান, চিকিৎসায় আট লাখ টাকা লাগবে। আমার এত টাকা নেই। আমার মেয়ে বিনা চিকিৎসায় মারা গেল।’

রমেন জয়ধরের ভাষ্য, ‘বরিশাল শের-ই–বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক দিন চিকিৎসা দেওয়ার পর চিকিৎসকেরা উন্নত চিকিৎসার জন্য মেয়েটিকে ঢাকার বারডেম হাসপাতালে নিতে বলেন। বারডেম হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানান, চিকিৎসায় আট লাখ টাকা লাগবে। আমার এত টাকা নেই। তাই সন্তানকে নিয়ে বাড়িতে ফিরে এলাকার ক্লিনিকে ভর্তি করি। আমার মেয়ে বিনা চিকিৎসায় মারা গেল।’

আগৈলঝাড়া উপজেলা সদরের ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকে গত শুক্রবার রাতে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে নবজাতকের জন্ম হয়। নবজাতকের হৃৎপিণ্ড ছিল শরীরের বাইরে গলার কাছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন