default-image

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর সরদারকান্দি গ্রামের ১১ বছর বয়সী শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় দুজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার শরীয়তপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুস সালাম খান এই রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুজন হলেন মো. ফরিদ শেখ ও মো. জাকির শেখ।

২০১৭ সালের ১৫ জুলাই লিজা আক্তার নামের ওই শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আদালতের আদেশে তাঁদের জেলা কারাগারে নেওয়া হয়।

সখিপুর থানা ও স্থানীয় সূত্র জানায়, সখিপুর থানা সদরের সরদারকান্দি গ্রামের বাসিন্দা লেহাজ উদ্দিন শেখের মেয়ে লিজা আক্তার সখিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছিল। ২০১৭ সালের ১৫ জুলাই স্কুলে যাওয়ার পর নিখোঁজ হয় সে। এর আট দিন পর ২২ জুলাই বাড়ি থেকে দুই কিলোমিটার দূরে একটি পাটখেত থেকে অর্ধগলিত অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরের দিন তার বাবা বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেন। মামলায় প্রতিবেশী ফরিদ শেখ ও জাকির শেখকে আসামি করা হয়।

বিজ্ঞাপন

অভিযোগপত্র থেকে জানা যায়, লিজা ২০১৭ সালের ১৫ জুলাই দুপুরে সখিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে সাইকেল চালাচ্ছিল। তখন তাদের প্রতিবেশী ফরিদ ও জাকির তাকে একটি ঘরে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়। ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় তাঁরা লিজাকে শ্বাসরোধে হত্যা করেন।

মামলা হওয়ার পর ওই বছরের ২৩ জুলাই ফরিদ ও জাকিরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁরা আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারি পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। ওই বছরের ৪ জুন অভিযোগ গঠন করেন আদালত। এরপর সাতজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। আর সকালে এই মামলার রায় ঘোষণা করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) ফিরোজ আহম্মেদ বলেন, মামলার রায়টি দ্রুত হওয়ায় মেয়েটির পরিবার সন্তুষ্ট।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন