বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখে চিহ্নিত করে বৃহস্পতিবার সকালে শাল্লা উপজেলার কাশিপুর গ্রামের এখলাছুর রহমান ওরফে লিপন (৩২), জয়নুল বারী (৩৮) ও বীর আলম (৪৫), দিরাই উপজেলার চণ্ডীপুর গ্রামের মতি মুন্সী (৬০), নাসনি গ্রামের রাকিব হোসেন (২২) ও শাহীন মিয়াকে (২৩) গ্রেপ্তার করা হয়।

এই হামলার ঘটনায় থানা ও আদালতে মামলা হয়েছে চারটি। ২ মে থেকে তিনটি মামলা তদন্ত করছে ডিবি। পুলিশ এ পর্যন্ত ৬৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

হেফাজতে ইসলামের নেতা মামুনুল হককে নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তির অভিযোগে গত ১৭ মার্চ সকালে শাল্লা উপজেলার কাশিপুর, দিরাই উপজেলার নাসনি, সন্তোষপুর ও চণ্ডীপুর গ্রামের মানুষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এসব গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ লাঠিসোঁটা নিয়ে নোয়াগাঁও গ্রামের পাশের ধারাইন নদের তীরে গিয়ে অবস্থান নেন। পরে সেখান থেকে শতাধিক লোক লাঠিসোঁটা নিয়ে ওই গ্রামে দিয়ে হামলা চালায়। এ সময় বাড়িঘর ও মন্দির ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

পরে এই হামলার ঘটনায় থানা ও আদালতে মামলা হয়েছে চারটি। শাল্লা থানায় গত ১৮ মার্চ দুটি এবং ২২ মার্চ একটি মামলা হয়। পরে গত ১ এপ্রিল আদালতে আরেকটি মামলা হয়। ২ মে থেকে তিনটি মামলা তদন্ত করছে ডিবি। পুলিশ এ পর্যন্ত ৬৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন