শরীয়তপুর সদর উপজেলা প্রশাসন ‘পদ্মা সেতু দেয়ালে, খেয়ালে’ শিরোনামে শরীয়তপুর সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের দেয়ালে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আঁকা ছবি ও লেখা কবিতা প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। আজ সকালে এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনদীপ ঘরাই।

default-image

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে সদর উপজেলার মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের পদ্মা সেতু নিয়ে চিত্র আঁকা ও কবিতা লেখার আয়োজন করে উপজলা প্রশাসন। সেখান থেকে বাছাই করা ছবি ও কবিতা প্রদর্শনের জন্য শরীয়তপুর সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের দেয়ালে টাঙানো হয়।

পদ্মা সেতুতে ৪১টি স্প্যান। এ জন্য বাছাই করা ৪১টি ছবি দেয়ালে লাগানো হয়। আর ২৫ জুন উদ্বোধন হবে, তাই ২৫ তারিখ ও ৬ মাসের ৬ মিলে ৩১টি কবিতা স্থান পেয়েছে দেয়ালে।

পালং তুলাসার গুরুদাস সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র তারিকুল ইসলাম পদ্মা সেতু নিয়ে লিখেছে কবিতা। দেয়ালে নিজের লেখা কবিতা মানুষ দেখছে, তা দেখে উচ্ছ্বসিত তারিকুল। সে বলে, ‘আমরা বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় কবিতা লিখি। কিন্তু পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের ঠিক আগমুহূর্তে পদ্মা সেতু নিয়ে কবিতা লেখা অনেক আনন্দের।’

তুলাতলা উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী খাদিজা আক্তার এঁকেছে পদ্মা সেতু ও বঙ্গবন্ধুর ছবি। খাদিজা বলে, ‘বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। তিনি আমাদের মনের মণিকোঠায় আছেন। তাঁর কন্যার নেতৃত্বে আমাদের পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়েছে। তাই পদ্মা সেতুর সঙ্গে আমি বঙ্গবন্ধুর ছবি এঁকেছি। সেই ছবি সকলে দেখছেন, আমাকে ধন্যবাদ দিচ্ছেন। এতে আমার খুব আনন্দ হচ্ছে।’

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনদীপ ঘরাই বলেন, ‘পদ্মা সেতু নিয়ে সবার মধ্যে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। আমাদের শিশু ও কিশোরদের মনের আনন্দ ও ভাবনার প্রকাশ ঘটিয়েছে ছবি এঁকে ও কবিতা লিখে। তা প্রদর্শনের জন্য দেয়ালে টাঙানো হয়েছে।’

জেলা প্রশাসক পারভেজ হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের সন্তানেরা ছবি এঁকেছে পদ্মা সেতু নিয়ে। তাদের কল্পনাকে রূপ দিয়েছে কবিতার খাতায়। তাদের সে লেখা ও ছবি আমরা উপস্থাপন করেছি। পদ্মা সেতু নিয়ে তাদের যে কল্পনা ও স্বপ্ন ছিল, তা তারা অসাধারণভাবে ফুটিয়ে তুলেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভাবনার আগামী ২০৪১ সালের উন্নত বাংলাদেশের ভাবনার সঙ্গে কিশোরদের ভাবনা এসব ছবি ও কবিতায় ফুটিয়ে তুলেছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন