ছাদবাগান ও সবুজায়নের উদ্যোক্তা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল্লাহ বলেন, মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষার্থীদের পাঠপুস্তকে ফুল, ফলসহ নানা প্রজাতির গাছের বর্ণনা রয়েছে। কিন্তু শিক্ষার্থীদের অনেকেই সেসব গাছের সঙ্গে পরিচিত নয়। তাই পাঠ্যপুস্তকের সঙ্গে মিল রেখে প্রায় তিন বছর আগে এ ছাদবাগান গড়ে তুলেছেন তিনি। মোহাম্মদ রুহুল্লাহ বলেন, শুধু জেলা শিক্ষা কার্যালয়ের ছাদেই নয়, জেলার সব উপজেলা শিক্ষা কার্যালয়ের ছাদেও একই আদলে ছাদবাগান গড়ে তোলা হয়েছে। তিনি নিজে জেলা কার্যালয়ের বাগানটির পরিচর্যা ও রক্ষণাবেক্ষণ করেন। কীটনাশক প্রয়োগ না করায় গাছগুলো বেড়ে উঠছে পরিবেশবান্ধব উপায়ে। জেলার বিভিন্ন স্কুলেও এ ধারণাটি ছড়িয়ে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল প্রথম আলোকে বলেন, দেশের প্রায় ৭০০টি উপজেলা শিক্ষা কার্যালয়ের ভবনের ছাদে পাঠ্যপুস্তকের উদাহরণগুলোর সঙ্গে মিল রেখে এমন ছাদবাগান করার সুযোগ আছে। এতে শিক্ষার্থীরা অনেক কিছুই শিখবে। তবে ব্যক্তি উদ্যোগের চেয়ে সরকারি পর্যায়ে উদ্যোগ নেওয়া গেলে সেটি আরও বেশি ফলপ্রসূ হবে। শুধু শিক্ষা কার্যালয় নয়, সব সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত ভবনের ছাদেও এমন সবুজায়ন করা যেতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

কৃষি কার্যালয়ের তথ্যমতে, ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার প্রয়োজন মেটাতে দেশে কৃষি ও বনভূমির আয়তন কমে আসছে। যেখানে মোট ভূখণ্ডের ২৫ শতাংশ বনভূমি থাকার কথা, সেখানে জাতিসংঘের কৃষি ও খাদ্য সংস্থার (এফএও) মতে, বাংলাদেশের মোট ভূখণ্ডের সাড়ে ১৩ শতাংশ বনভূমি রয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব, যেমন উষ্ণায়ন, অতিবৃষ্টি ও খরা প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে সবুজায়ন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন