বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাথীর ভাই আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘যৌতুকের টাকার জন্য প্রায়ই আমার বোনকে চাপ দিতেন মামুন। এ নিয়ে কয়েক বার সালিসও হয়েছে। কয়েক দিন আগে ওকে মারধর করলে আমরা ফরিদপুর মেডিকেলে নিয়ে ওকে চিকিৎসা করাই। আজ আমার বোনকে মেরে ঘরে ঝুলিয়ে রেখেছে। আমার বোন আত্মহত্যা করেনি। ওকে হত্যা করা হয়েছে।’

সকাল থেকে অভিযুক্ত মামুনের মুঠোফোন বন্ধ থাকায় তাঁর সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

শিবচর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমির হোসেন সেরনিয়াবাত বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, সাথী বেগমকে হত্যা করে আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন