বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

স্থানীয় ভোটার ও কেন্দ্রসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, দুপুর ১২টা থেকে বহিরাগতদের একটি দল ওই কেন্দ্রের ভেতরে কয়েক দফায় ঢুকে ব্যালট পেপার বই ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাঁরা তিনটি ব্যালট পেপার বই ও দুটি সিল ছিনিয়ে নিয়ে জাল ভোট দিতে শুরু করেন। এ সময় তাঁরা সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তার সিল ছাড়াই শতাধিক ব্যালট পেপারে সিল মেরে ব্যালট বাক্সে ফেলেন। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাটিপেটা করে বহিরাগতদের কেন্দ্রের বাইরে বের করে দেয়।

এ সময় ওই কেন্দ্রে থাকা কয়েকজন সাংবাদিক এসব ঘটনার ভিডিও ধারণ করেন। ভিডিওতে দেখা গেছে, অন্তত ১০ যুবক কেন্দ্রের ভেতরে ঢুকে ব্যালট পেপারে অনবরত সিল মারছেন। পরে দেখা যায়, ওই ব্যালট পেপারগুলোতে নৌকা প্রতীকে সিল মারা হয়েছে।

default-image

এই ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হলেন খন্দকার হাছান উল সানি। এ বিষয়ে জানতে হাছান উল সানির মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাঁর নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. সায়েম খান বলেন, ‘তিনটি ব্যালট পেপার বই ও দুটি সিল ছিনিয়ে নিয়ে জাল ভোট দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে প্রায় এক ঘণ্টা কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ বন্ধ রাখা হয়েছিল। ভোট গণনা করার সময় ব্যালটের পেছনে আমাদের গোল সিল বা স্বাক্ষর না থাকলে ওই ব্যালট পেপারগুলো বাতিল করা হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন