পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালে উপজেলায় মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানটিতে ছেলে ও মেয়েদের পৃথকভাবে আবাসিক ও অনাবাসিকভাবে পাঠদান করা হয়। প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শতাধিক শিক্ষার্থী এই প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করে। আবু তালেব ওই প্রতিষ্ঠানের শুরু থেকে শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন। বর্তমানে তিনি সহকারী শিক্ষক।

আবু তালেবের বিরুদ্ধে অভিযোগ, গতকাল বেলা ১১টার দিকে শ্রেণিকক্ষে পাঠদানকালে প্রথম শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেন তিনি। পরে ওই শিক্ষার্থী বাড়িতে গিয়ে তার বাবাকে ঘটনাটি জানায়। তিনি বিষয়টি অন্য অভিভাবকদের জানান। একপর্যায়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে আবু তালেবকে আটক করেন বিক্ষুব্ধ অভিভাবকেরা। খবর পেয়ে থানা–পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে বিক্ষুব্ধ লোকজন আবু তালেবের বিচারের দাবিতে তাঁকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন।

এ ঘটনায় ওই শিক্ষার্থীর বাবা বাদী হয়ে গতকাল আবু তালেবের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগে একটি মামলা করেন। এই মামলায় আবু তালেবকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আজ দুপুরের পর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগেও আবু তালেবের বিরুদ্ধে ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দ্বিতীয় শ্রেণির দুই শিশু ও প্রথম শ্রেণির এক শিশুকে একই কৌশলে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছিল।

ধুনট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান বলেন, জনতার হাতে আটক শিক্ষক আবু তালেবকে শিক্ষার্থীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন