শেরপুরে খাদ্য পরিদর্শক, স্বাস্থ্যকর্মীসহ আরও ১৫ জন কোভিডে আক্রান্ত

বিজ্ঞাপন
default-image

শেরপুরে খাদ্য পরিদর্শক, স্বাস্থ্যকর্মীসহ আরও ১৫ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। তাঁদের মধ্যে শেরপুর সদরে ৯, নকলায় ৫ ও নালিতাবাড়ী উপজেলায় ১ জন রয়েছেন। সব মিলিয়ে এই জেলায় শনাক্ত মানুষের সংখ্যা দাঁড়াল ১৪২।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাব থেকে পাঠানো প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়।

জেলা ও উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নতুন আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে শেরপুর সদর উপজেলার সরকারি খাদ্যগুদামের খাদ্য পরিদর্শক, নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যানবিদ এবং নকলা উপজেলায় করোনায় মারা যাওয়া নারীর এক মেয়ে ও এক স্বজন রয়েছেন। আক্রান্ত সবাই বাসায় আইসোলেশনে (বিচ্ছিন্ন) রয়েছেন।

সিভিল সার্জন এ কে এম আনওয়ারুর রউফ, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) মো. মোবারক হোসেন এবং নকলার ইউএইচএফপিও মো. মজিবুর রহমান গতকাল রাতে প্রথম আলোকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন জানান, গতকাল রাতে প্রাপ্ত প্রতিবেদনে জেলায় এক দিনে সর্বোচ্চ ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ঈদুল ফিতরের পর থেকে শেরপুরে করোনার বিস্তার বেড়েই চলেছে। গত ৫ এপ্রিল জেলায় প্রথম দুই নারীর করোনা শনাক্তের পর গত দুই মাসের বেশি সময়ে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪২। এর মধ্যে গত এক সপ্তাহে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮ জন। আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৭২ জন। আর মারা গেছেন দুজন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ঈদের পর লকডাউন শিথিলের ফলে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন না করায় সামাজিক সংস্পর্শের কারণেই এখন সাধারণ মানুষ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হচ্ছেন। তাই এর বিস্তার রোধে সবাইকে সচেতন হওয়া, মাস্ক ব্যবহারসহ সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার জন্য অনুরোধ জানান সিভিল সার্জন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন