default-image

শেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল মান্নান এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে পাঁচ প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

তবে আওয়ামী লীগের দুই বিদ্রোহী প্রার্থী তাঁদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। এই দুই প্রার্থী হলেন জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক রফিকুল ইসলাম আধার এবং শ্রমবিষয়ক সম্পাদক আরিফ রেজা। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে তাঁরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন। এখানে মেয়র পদে প্রার্থী সাতজন।

পাঁচ কাউন্সিলর প্রার্থী ও বিএনপির এক মেয়র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের বিষয়টি গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিশ্চিত করেছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ শানিয়াজ্জামান তালুকদার।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, শেরপুর পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগ–মনোনীত বর্তমান মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া, বিএনপি–মনোনীত জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এ বি এম মামুনুর রশীদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম আধার, আরিফ রেজা, ব্যবসায়ী আনোয়ারুল সাদ্দাত, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা আতাউর রহমান ও পরিবহন ব্যবসায়ী আল আমিন।

বিজ্ঞাপন

প্রার্থী ও আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, রফিকুল ইসলাম ও আরিফ রেজা মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন চেয়েও পাননি। কিন্তু দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে তাঁরা মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। ফলে, তাঁরা দুজন বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার পাল প্রথম আলোকে বলেন, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে যাঁরা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি শেরপুর পৌরসভার নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন