কার্যালয়টির অফিস সহায়ক বদিউজ্জামান বলেন, ‘আজ সকালে স্যারের দেরি দেখে তাঁকে ডাকতে যাই। এ সময় দরজা খোলা ছিল। ভেতরে ঢুকে বাথরুমে ঝরনার সঙ্গে গামছা প্যাঁচানো ঝুলন্ত লাশ দেখে চিৎকার দিই। তাঁর চিৎকার শুনে অন্যরা ছুটে এসে পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ এসে লাশটি উদ্ধার করে।’

রংপুর মহানগর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজার রহমান প্রথম আলোকে বলেন, আজ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইতিমধ্যে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে লাশের সুরতহাল করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন