বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানববন্ধন চলাকালে বক্তারা বলেন, শামীম আহমেদ এলাকায় প্রভাবশালী। তাঁর চাচাতো ভাই সরকারদলীয় প্রভাবশালী নেতা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান। এ কারণে একের পর এক দুষ্কর্ম করেও পার পেয়ে যাচ্ছেন শামীম। এর আগে তিনি বিদ্যালয়ের তিন ছাত্রীকে একইভাবে বিয়ে করেছেন। সর্বশেষ গত এপ্রিলে সনাতন ধর্মের অনুসারী এক ছাত্রীকে নিয়ে পালিয়ে গিয়ে ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করেন। অপহরণের মামলায় শামীম গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। এরপর তাঁকে প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল। পরে জামিনে মুক্তি পেয়ে পুনরায় স্বপদে বহাল হয়েছেন। বিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি রক্ষায় দ্রুত শামীম আহমেদের স্থায়ীভাবে বরখাস্তের দাবি করেন বক্তারা।

অভিযোগের ব্যাপারে বক্তব্য জানতে প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। নূরনগর আশালতা বিদ্যালয় পরিচালনায় গঠিত আহ্বায়ক কমিটির প্রধান বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মজিদ বলেন, ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে। তাঁকে স্থায়ী বরখাস্তের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

মানববন্ধনে ওই স্কুলছাত্রীর পরিবারের সদস্যদের পাশাপাশি বক্তব্য দেন নূরনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল বাবু, অভিভাবক অরুণ মুখার্জি, আবদুল কাদের, হাবিবুল আলম, মঈনুদ্দীন, সাইফুল্লাহ আল মামুন, রফিকুল ইসলাম, লিয়াকত হোসেন প্রমুখ।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মেয়েটিকে ৫ এপ্রিল নিয়ে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদ। মেয়েটির বাবা শ্যামনগর থানায় অপহরণের মামলা করেন। পরে খুলনার ডুমুরিয়া থেকে শামীমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে একটি বাড়ি থেকে স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনার পর ১০ এপ্রিল প্রধান শিক্ষকের পদ থেকে শামীম আহমেদকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। কিন্তু বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ পরে আর তাঁকে স্থায়ী বরখাস্তের উদ্যোগ নেয়নি। এ অবস্থায় সম্প্রতি তিনি স্বপদে পুনর্বহাল হয়েছেন।

সাতক্ষীরা জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, কেউ সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার পর ৬০ দিনের মধ্যে বিষয়টির নিষ্পত্তি করতে হয়। তা না হলে নিময় অনুযায়ী ৬১ দিন থেকে সম্পূর্ণ বেতন-ভাতা পাবেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি। তবে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত তিনি স্বপদে পুনর্বহাল হতে পারবেন না। নূরনগর আশালতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ঘটনাটি তিনি খতিয়ে দেখবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন