বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আ ন ম আবুজর গিফারীর নেতৃত্বে র‍্যাব-৬-এর সাতক্ষীরা ক্যাম্পের কমান্ডিং অফিসার স্কোয়াড্রন লিডার মো. ইশতিয়াক হোসেন, বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তা সাফায়েত হোসেন প্রমুখ কর্মকর্তা এ অভিযানে অংশ নেন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সদস্যরা হরিনগর বাজারে ভেজাল মধুর সন্ধানে নামেন। একপর্যায়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাশিদুল ইসলামের হরিনগরের ভাড়াবাড়ি থেকে ৯৭ ড্রাম এবং নজরুল ইসলামের দোকান থেকে ৭ ড্রাম ভেজাল মধু জব্দ করেন।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাশিদুল ইসলামের হরিনগরের ভাড়াবাড়ি থেকে ৯৭ ড্রাম এবং নজরুল ইসলামের দোকান থেকে ৭ ড্রাম ভেজাল মধু জব্দ করা হয়।

শ্যামনগর ইউএনও আ ন ম আবুজর গিফারী বলেন, চিনি জ্বালিয়ে একটি অসাধু চক্র দীর্ঘদিন মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে দুই ব্যবসায়ীর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান সিলগালা এবং তাঁদের বাসা থেকে ১০৪ ড্রামে ৪ হাজার ৬১৫ কেজি বা ১১৫ মণের বেশি ভেজাল মধু জব্দ করা হয়। এ সময় ভেজাল মধু ব্যবসায়ী হরিনগর গ্রামের রাশিদুল ইসলামকে ৫০ হাজার ও নজরুল ইসলামকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জব্দ করা মধু চুনকুড়ি এলাকায় একটি পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়।

শ্যামনগর হরিনগর গ্রামের কলেজশিক্ষক আশুতোষ রায় বলেন, উপজেলার হরিনগর, মীরগাং, গাবুরা, দাতিনাখালীসহ সুন্দরবনসংলগ্ন এলাকায় কয়েকটি চক্র দীর্ঘদিন ধরে ভেজাল মধুর ব্যবসা চালিয়ে আসছে। চিনি জ্বালিয়ে স্বল্প পরিমাণ মধু মিশিয়ে তা সুন্দরবনের মধু বলে প্রতারণা করে আসছে ক্রেতাদের সঙ্গে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন