বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বদিউজ্জামান বাদশার জানাজায় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, জাতীয় সংসদের হুইপ মো. আতিকুর রহমান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সাবেক জ্যেষ্ঠ সচিব আবদুস সামাদ, শেরপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চন্দন পাল, শেরপুর পৌরসভার মেয়র গোলাম কিবরিয়া, নালিতাবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান মোকছেদুর রহমান, নকলা উপজেলা চেয়ারম্যান শাহ মো. বোরহান, পৌরসভার মেয়র আবু বক্কর সিদ্দিক প্রমুখ অংশ নেন। এ সময় বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তাঁকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বদিউজ্জামান। উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে অব্যাহতি নিয়ে ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেরপুর-২ (নকলা-নালিতাবাড়ী) আসনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। পরে কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ান।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত সেপ্টেম্বরে বদিউজ্জামান বাদশা প্রথমে করোনাভাইরাস ও ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন। দেশে কয়েকটি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসার পর গত ২২ অক্টোবর তাঁকে ভারতের চেন্নাইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় জানা যায়, তিনি করোনা ও ডেঙ্গুর পাশাপাশি ক্যানসারেও আক্রান্ত। তাঁর শারীরিক অবস্থা আরও অবনতি হলে চিকিৎসকদের পরামর্শে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। প্রথমে বিআরবি ও পরে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সোমবার সকালে ঢাকার মোহাম্মদপুর, খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট এবং দুপুরে ময়মনসিংহ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন