বিজ্ঞাপন

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে বরগুনার নদ-নদীতে জোয়ারের উচ্চতা ছিল ৩ দশমিক ৬৮ মিটার এবং রাতের জোয়ারের উচ্চতা ছিল ৩ দশমিক ৪৮ মিটার, যা দিনের জোয়ারের থেকে ২০ সেন্টিমিটার কম। গতকাল দিনের জোয়ারের সময় বরগুনার নদ-নদীতে বিপৎসীমার ৮৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হলেও রাতের জোয়ার প্রবাহিত হয়েছে ৪৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে, যা দিনের জোয়ারের থেকে ৩৫ সেন্টিমিটার কম।

পাউবো বরগুনার পানি পরিমাপক মো. মাহতাব হোসেন বলেন, গতকাল রাতে পূর্ণিমা ছিল। তাই ধারণা ছিল, দিনের জোয়ারের চেয়ে রাতের জোয়ারের পানির উচ্চতা বেশি হবে। কিন্তু তা না হয়ে দিনের থেকেও রাতের জোয়ারের পানির উচ্চতা হয়েছে কম।

বরগুনা সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নে গুলবুনিয়া এলাকার বাসিন্দা হাতেম আলী বলেন, ঘূর্ণিঝড়পরবর্তী সময়ে জোয়ারের উচ্চতা একবার কমা শুরু করলে সাধারণত আর বাড়ে না। এরপর পানির উচ্চতা কমতে কমতে একেবারে স্বাভাবিক পর্যায়ে চলে আসে। তাই ইয়াস ও পূর্ণিমার প্রভাবে সৃষ্ট জোয়ারের উচ্চতা আর বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা নেই।

বরগুনা সদরে আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের সমাজসেবক মুজিবুল হক বলেন, জোয়ারের তোড়ে পায়রা নদের তীরবর্তী জাঙ্গালিয়া এলাকার বাঁধের একটি অংশ নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। বরগুনার পাউবো কার্যালয়ের কর্মকর্তারা জরুরিভাবে তা মেরামত করে দিয়েছেন।

পাউবো বরগুনার নির্বাহী প্রকৌশলী কাইছার আলম বলেন, গতকাল দিনের জোয়ারের তোড়ে বেড়িবাঁধ ভেঙে ও উপচে জেলার বিভিন্ন স্থানে গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। পরে ভাটার সময় ভাঙা বেড়িবাঁধ সংস্কার করা হয়েছে। কিন্তু রাতের জোয়ারের পর কোথাও বেড়িবাঁধ ভেঙে বা উপচে লোকালয় প্লাবিত হওয়ার কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন