বিজ্ঞাপন

সকালে ফোন পাওয়ার পর সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী বেলা দুইটার দিকে হাজেরা আক্তারের (৫৫) বাড়িতে যান। হাজেরার হাতে ৩০ হাজার টাকার চেক ও নগদ দুই হাজার টাকা তুলে দেন। এ সময় প্রতিমন্ত্রী তাঁকে বিধবা ভাতার কার্ড ও সরকারের পক্ষ থেকে একটি নতুন ঘর বরাদ্দ করাসহ জীবনধারণের সব ধরনের সুযোগ সুবিধা দিতে স্থানীয় প্রশাসন ও সমাজসেবা কার্যালয়কে নির্দেশ দেন।

নিশ্চিন্তপুর গ্রামের বাসিন্দা ফজলু মিয়া বলেন, হাজেরা আক্তার খুব কষ্টে জীবন যাপন করছেন। এই সংসারে তাঁর আপন বলতে কেবল একটি মেয়ে আছে। কিন্তু মেয়ের পরিবারটিও হতদরিদ্র। তিনি অন্যের বাড়িতে থেকে–চেয়ে চলেন। অসুস্থ হওয়ায় এখন চলাফেরা করতে তাঁর কষ্ট হয়।

প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আজ বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে নয়টার সময় হাজেরা আমাকে ফোন করেন। পরে খোঁজ নিয়ে দুপুরে তাঁর কাছে হাজির হয়ে ৩০ হাজার টাকার চেকসহ কিছু সহযোগিতা করা হয়। তাঁর প্রয়োজনীয় চিকিৎসা ও  তিনি যেন ভালোভাবে জীবন যাপন করতে পারেন, সে জন্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

প্রতিমন্ত্রীর কাছ থেকে সহায়তা পেয়ে আনন্দিত হাজেরা বলেন, ‘খুবই কষ্টে আছি। মাইনষের কাছে শুনছি মন্ত্রী সাহায্য করেন। পরে ভয়ে ভয়ে সহালে একজনের মোবাইল থাইক্কা ফোন দিছি। ফোন পাইয়া মন্ত্রী আমার কাছে আইছে। আমার চিকিৎসার লাইগ্গা টেহা দিছুন। আমারে ঘর, বিধবা ভাতাসহ আরও কিছু দিব কইছুন। দিলে বালা হইব।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন