default-image

টাঙ্গাইলের সখীপুরে জেলা ছাত্রলীগের নেতা মো. জোবায়েরকে (২৮) কুপিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার রাতে উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের পূর্ব চতলবাইদ এলাকায় একটি গানের অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে।
রাতেই গুরুতর আহত জোবায়েরকে প্রথমে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। দুর্বৃত্তদের কোপে তাঁর ডান হাতের কবজি প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়েছে। এ ছাড়া তাঁর এক পায়েও কোপানো হয়েছে।

জোবায়ের উপজেলার কালমেঘা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ছানোয়ার হোসেনের ছেলে। তিনি জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য। এর আগে তিনি উপজেলা ছাত্রলীগেরও সদস্য ছিলেন।

জোবায়েরের বড় ভাই জাহিদ হোসেন বলেন, গতকাল রাতে বাড়ি থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে বন্ধুদের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে পূর্বচতলবাইদ গ্রামে একটি গানের অনুষ্ঠানে যান জোবায়ের। রাত সাড়ে নয়টার দিকে ওই অনুষ্ঠান থেকে বাড়ি ফেরার পথে অনুষ্ঠান স্থলের পাশেই ২০ থেকে ২৫ জন তরুণ ৮ থেকে ১০টি মোটরসাইকেল নিয়ে তাঁদের পথরোধ করেন। একপর্যায়ে ওই তরুণেরা দা, রড নিয়ে জোবায়েরের ওপর হামলা করেন। দায়ের কোপে জোবায়েরের ডান হাতের কবজি প্রায়ই বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ওই অনুষ্ঠানের লোকজন জোবায়েরকে আহত অবস্থায় প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। পরে তাঁর অবস্থা গুরুতর হওয়ায় চিকিৎসকেরা তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

বিজ্ঞাপন

কারা হামলা করেছে জানতে চাইলে জাহিদ হোসেন মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, বহুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া সেলিমের অনুসারীরা এ হামলা করেছেন। আজ সোমবার তাঁদের নামে মামলা করা হবে।

তবে বহুরিয়া ইউপির চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুতুব উদ্দিনের ছেলে গোলাম কিবরিয়া সেলিম হামলার বিষয়ে তাঁর কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে জানান।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে সাইদুল হক ভূঁইয়া আজ বেলা সোয়া তিনটার দিকে প্রথম আলোকে বলেন, এ ব্যাপারে কেউ এখনো মামলা করতে থানায় আসেননি। তবে কেউ বাদী হয়ে মামলা করলে মামলাটি গ্রহণ করে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন