কালিদাস বিট কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কামারপাড়া এলাকায় মো. বাচ্চু মিয়া নামের এক ব্যক্তি বনের জমিতে রাতের বেলায় ঘর নির্মাণ করছিলেন। খবর পেয়ে বন বিভাগের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে বাচ্চু মিয়ার ভাই আবু বকর সিদ্দিককে গ্রেপ্তার করে।

আজ তাঁকে টাঙ্গাইল বন আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গত শুক্রবার রাতে উপজেলার হতেয়া রেঞ্জের কালিদাস বিট কর্মকর্তা শাহ আলমের নেতৃত্বে বনকর্মীরা আবু বকরকে আটক করে বন কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। রাতে কার্যালয়ের একটি ঘর থেকে হাতকড়া পরা অবস্থায় ওই আসামি পালিয়ে যান। এ ঘটনায় গত শনিবার দুপুর ১২টার দিকে কালিদাস বিট কর্মকর্তা শাহ আলম বাদী হয়ে থানায় আসামি নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডি করার তিন ঘণ্টার মধ্যে পুলিশ হাতকড়াটি উদ্ধার করলেও আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

পরে সোমবার বিকেলে উপজেলার কীর্তনখোলা এলাকা থেকে বন বিভাগ আবার আবু বকরকে গ্রেপ্তার করে। রাতে তাঁকে টাঙ্গাইল বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়ের বন হাজতে রাখা হয়। মঙ্গলবার তাঁকে টাঙ্গাইল বন আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

কালিদাস বিট কর্মকর্তা শাহ আলম মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, এ ঘটনায় বাচ্চু মিয়া, আবু বকর সিদ্দিক ও নুর আলম এই তিন সহোদরকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন