বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে কথা বলতে শ্রমিক আশু দাশের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

কোদালা চা–বাগানের ব্যবস্থাপক আবদুল লতিফ বলেন, শ্রমিকদের বন্য প্রাণী শিকারের বিষয়টি তাঁর জানা নেই। খোঁজ নিয়ে জানা হবে, কারা জড়িত। তারপর তাঁদের ডেকে আনা হবে।

বন বিভাগের রাঙ্গুনিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মাসুম কবির বলেন, বন্য প্রাণী শিকারের বিষয়টি তিনি জানেন না। এটি দণ্ডনীয় অপরাধ। সজারু শিকারের বিষয়টি তিনি দেখছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন