বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ছাদেক বলেন, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে ২০১৮ সালে তাঁকে বারি-১ জাতের ১১০টি মাল্টার চারা দেওয়া হয়েছিল। তিনি ওই চারা তাঁর বাড়ির আঙিনায় ১০ শতাংশ পতিত জমিতে রোপণ করেন।

ছাদেক আরও বলেন, মাল্টা গাছ কমপক্ষে ১৫ বছর ধরে ফলন দেয়। তাঁর এ বাগান করতে চারা বিনা মূল্যে পেয়েছিলেন। আর জমি তাঁর নিজের। গত তিন বছর বাগান পরিচর্যায় তাঁর ১০ হাজার টাকার মতো খরচ হয়েছে। সেই খরচ উঠে লাভ আসতে শুরু করেছে বেশ আগে।

সাহেবাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান জানান, এ এলাকা মাল্টা চাষের উপযোগী। তা ছাদেক মিয়ার বাগান দেখে বোঝা যায়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহবুবুল হাসান বলেন, ২০১৮ সালে খরিপ-১ মৌসুমে ন্যাশনাল অ্যাগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম (এনএটিপি) আওতায় আদর্শ ফলবাগান স্থাপন প্রদর্শনী হিসেবে ছাদেক মিয়াকে মাল্টার চারা দেওয়া হয়। তারপর থেকে কৃষি অফিস তাঁকে বিভিন্ন সময়ে পরামর্শ দিচ্ছেন। এখন পর্যন্ত উপজেলায় ৩০টি মাল্টা প্রদর্শনী দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন