সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সমিতির আহ্বায়ক প্রশান্ত কুমার পোদ্দার। বক্তব্যের শুরুতে তিনি বৃহস্পতিবার রাতে মুখোশধারী সন্ত্রাসীদের হামলায় তিন বাসমালিক হত্যাচেষ্টার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান। তিনি বলেন, এ ঘটনায় সদর থানায় সুনির্দিষ্ট ব্যক্তির নাম-পরিচয় উল্লেখ করে মামলা করা হয়েছে। কিন্তু তিন দিনে মাত্র দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের এখনো গ্রেপ্তার করা হয়নি। মঙ্গলবারের মধ্যে সব আসামি গ্রেপ্তার করা না হলে বুধবার থেকে সব রুটে নাটোরের বাস, মিনিবাস ও মাইক্রোবাস চলাচল বন্ধ থাকবে।

প্রশান্ত কুমার পোদ্দার আরও বলেন, পুলিশ যাদের গ্রেপ্তার করেছে, তাদের রিমান্ডে নিয়ে এ ঘটনার পেছনে কী কারণ ছিল এবং কারা এ ঘটনার নির্দেশদাতা তা উদ্‌ঘাটন করতে হবে। এটি একটি জঘন্য ঘটনা। এর বিস্তারিত তদন্ত হওয়া দরকার।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা প্রথম আলোকে বলেন, এ ঘটনায় ইতিমধ্যে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। প্রয়োজনে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এ ছাড়া ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে বিস্তারিত তদন্ত করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ঈদ আসন্ন। এ মুহূর্তে জনগণের ভোগান্তির কথা ভেবে পরিবহন বন্ধ করা ঠিক হবে না।

বৃহস্পতিবার রাতে মুখোশ পরিহিত একদল দুর্বৃত্ত কানাইখালী এলাকায় অবস্থিত সমিতির কার্যালয়ে ঢুকে হাতুড়ি ও রড দিয়ে বাসমালিক বাবুল আক্তার, মজিবর রহমান ও আবদুর রশিদকে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। আগামী ৫ মে সমিতির কার্যকরী কমিটির নির্বাচন। ওই নির্বাচন কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটতে পারে বলে বাসমালিকেরা ধারণা করছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন