বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার এম বালিয়াতলী ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী মনোনীত প্রার্থী নাজমুল ইসলাম ৫ হাজার ৭০০ এবং তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী এম এ বারীও ৫ হাজার ৭০০টি ভোট পান। এ ছাড়া অপর স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী গোলাম সারোয়ার ৫ হাজার ১০০ ভোট পেয়েছেন। নির্বাচনী আইন অনুযায়ী সমপরিমাণে ভোট পাওয়া ওই দুই প্রার্থীর মধ্যে পুনরায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে নিশ্চিত করেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নাজমুল ইসলাম অভিযোগ করে জানান, ডিএন কলেজের কেন্দ্রের বাইরে থেকে নৌকার সিল মারা একটি ব্যালট উদ্ধার করে ভোট গণনা কেন্দ্রে জমা দেওয়া হয়। কিন্তু সেখানে দায়িত্বরত রিটার্নিং কর্মকর্তা ব্যালটটি গ্রহণ করেননি। এ বিষয় জানতে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী এম এ বারীর মুঠোফোনে কল দিলে তিনি ধরেননি।

নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং ও সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নাজমুল হাসান জানান, কেন্দ্রের বাইরে পাওয়া ব্যালট গ্রহণযোগ্য নয়, তাই ব্যালটটি গ্রহণ করা হয়নি।
এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা দিলীপ কুমার হাওলাদার প্রথম আলোকে জানান, এম বালিয়াতলী ইউনিয়নে নির্বাচনে তিন প্রার্থীর মধ্যে দুই প্রার্থী সমানসংখ্যক ভোট পাওয়ার কারণে তাঁদের ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। নির্বাচনী আইন অনুযায়ী ওই দুজনকে নিয়ে পুনরায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন